Nation Flag Of BANGLADESH শিক্ষা নিয়ে গড়ব দেশ শেখ হাসিনার বাংলাদেশ
banner

Principal's Massage:

photo

ইছামতি নদীর তীর ঘেষে সবুজের সমারোহে ঘেরা পাবনা শহরের প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত বাংলাদেশের অন্যতম একটি বিদ্যাপিঠ সরকারি এডওয়ার্ড কলেজ ।শিক্ষা, সাহিত্য , ইতিহাস-ঐতিহ্য ক্রীড়া ও সংস্কৃতি বিকাশের অন্যতম  এই বিদ্যাপিঠ  ৪৯ একর জায়গা জুড়ে ১৮৯৮ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। ১৭ বিষয়ে অনার্স, মাস্টার্স ও ডিগ্রি পাস কোর্সে. . .
Details

Vice Principal's Message:

photo

শত বর্ষের ঐতিহ্যবাহী এডওয়ার্ড কলেজ বাংলাদেশের অন্যতম শ্রেষ্ঠ বিদ্যা পীঠ। শহরের প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত সবুজে ঘেড়া, ছায়া সুনিবিড়, পাখি ডাকা শান্ত অঞ্চলে অবস্থিত কলেজেটির রয়েছে এক সু-দীর্ঘ ইতিহাস। আজ থেকে বহু বছর আগে দার্শনিক শিক্ষক মহামতি সক্রেটিস বলেছিলেন  ‘Knowledge is Virtue’  অর্থাৎ “জ্ঞানই পুণ্য,. . .
Details

History

অবিভক্ত ব্রিটিশ বাংলার উনিশ শতকের দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে আধুনিক শিক্ষা বিষয়ক ঐতিহাসিক নীতিমালা আশ্রয় করে কলেজস্তরের শিক্ষা প্রসারে সম্ভাবনার সৃষ্টি করে।পাবনার জেলাবাসীর প্রতীক্ষার কাল খুব বেশি দীর্ঘ হয় নি,ঐ শতকেরই শেষে ১৮৯৮ খ্রিস্টাব্দে এ জেলা শহরে কলেজ প্রতিষ্ঠার দীপ্তিময় ইতিহাস রচিত হয়।স্বাধীন বাংলার সীমানায় তখনও কোনো বিশ্ববিদ্যালয় বা শিক্ষাবোর্ড গড়ে ওঠেনি,উত্তরাঞ্চলের বিশাল এলাকায় রাজশাহী কলেজ ছারা আর কোনো কলেজ ছিলনা।কলেজ  প্রতিষ্ঠার এই প্রোজ্জ্বল  প্রেক্ষাপটে একজন মানুষের নাম উচ্চারন করতেই হয়,যে মানুষটির উৎসাহে ও দৃঢ় প্রত্যয়ে পাবনার নতুন প্রজন্মের সাথে আধুনিক শিক্ষার সময়োচিত সংযোগ স্থাপন সম্ভব হয়েছিল –তিনি হলেন শ্রী গোপাল চন্দ্র লাহিড়ী। পদ্মা যমুনার বিধৌত পলিমাটিতে ইতোমধ্যে (১৮২৮খ্রি.) জেলার ভৌগোলিক সীমানা চিহ্নিত হয়ে যাওয়া পাবনা নামের ভূখন্ডের জেলা শহরে ১৮৯৮খ্রিস্টাব্দের জুলাই মাসে শ্রী গোপাল চন্দ্র লাহিড়ী তারই প্রতিষ্ঠিত ‘পাবনা ইনস্টিটিউশন বিদ্যালয় (প্রতিষ্ঠিত ১৮৯৪ খ্রি.,বর্তমানের গোপাল চন্দ্র ইনস্টিটিউট)-এর একটি কক্ষে নতুন কলেজের দ্বারোদ্ঘাটন করলেন এবং প্রধান শিক্ষকতার সাথে অধ্যক্ষের দায়িত্বেও সমাসীন হলেন। সে বছরেরই ডিসেম্বরে F.A Standard কলেজ হিসাবে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্তিলাভের মধ্য দিয়ে তাঁর স্বপ্নের বাস্তবায়ন হলো।তিনি ১৯০৬ খ্রিস্টাব্দ প্রর্যন্ত অধ্যক্ষের দায়িত্ব পালন করেছেন।এ বছর কলেজটির নামকরন করা হয় “পাবনা কলেজ”।১৯১১ খ্রিস্টাব্দে প্রয়াত সম্রাট সপ্তম এডওয়ার্ডের স্মৃতি রক্ষার্থে কলেজটির নামকরন করা হলো ‘এডওয়ার্ড কলেজ’।প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ মহোদয়ের দায়িত্বকালীন সুযোগ্য সহকর্র্মী  ছিলেন শ্রী গোপাল চন্দ্র মৈত্র,শ্রী আশুতোষ রায়,পন্ডিত হরি নারায়ণ কাব্যর্তীথ বিদ্যাবি. . .

Details

About Us

মহামহিমান্বিত রাজ-রাজেশ্বর ভারত-সম্রাট সপ্তম এডওয়ার্ড। তাঁর মাতা রাণী ভিক্টোরিয়ার মৃত্যুর পর ১৯০১ খ্রিস্টাব্দে ইংল্যান্ডের রাজসিংহাসনের অধিষ্ঠিত হন। রাজ্যাভিষেককালে তিনি 'গ্রেটব্রিটেন ও আয়ারল্যান্ড এবং ব্রিটিশ উপনিবেশ সমূহের রাজা, ধর্মের রক্ষক এবং ভারতবর্ষের সম্রাট উপাধি গ্রহণ করেন। সপ্তম এডওয়ার্ড দয়ালু, প্রজাবৎসল, বিচক্ষণ, অমায়িক 'শান্তি-সংস্থাপক' হিসেবে স্মরণীয় হয়ে আছেন। তাঁর শাসনামলের সর্বাপেক্ষা উলেখযোগ্য ঘটনা হলো ১৯০২ খ্রিস্টাব্দে পার্লামেন্টে 'শিক্ষা আইন' প্রণয়নের মাধ্যমে শিক্ষা পদ্ধতির আধুনিকীকরণ করা। ১৯১০ খ্রিস্টাব্দে ইংল্যান্ডের ধর্মপরায়ণ ও পরমতসহিষ্ণু সম্রাট সপ্তম এডওয়ার্ডের মৃত্যু হলে তাঁর পুণ্যস্মুতিকে অমর করে রাখার উদ্দেশ্যে ১৯১১ খ্রিস্টাব্দের আগস্ট মাসে পাবনা কলেজের নামকরণ করা হলো- ' এডওয়ার্ড কলেজ'ভ। একজন সম্রাটের নামে কলেজের নামকরণ উপমহাদেশে এটিই প্রথম। 

Details

Cyber Head's Massage:

photo

Lorem ipsum dolor sit amet, consectetur adipiscing elit. Fusce egestas erat quis ante egestas, nec dictum erat malesuada. Nulla facilisi. Donec in justo sodales dui vestibulum feugiat. Proin pellentesque arcu elementum nisi ornare mattis non eget met. . .
  Details

All Others Department Academic Hall